করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ করার জন্য ১০ টা উপায়

Leave a Comment
যেমনটা আপনারা জানেন করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ করতে আগামী শুক্রবার 22 March ভারতে জনতা কারফিউ ছিল। আজ সোমবার 23 March থেকে 27 March পর্যন্ত রাজ্য জুড়ে শুরু হয়েছে লকডাউন। এই প্রথম বার বাড়িতে বসে দেশের সেবা করার সুযোগ পেয়েছেন সুতরাং ঘরে থাকুন আর আমাদের দেশের সরকারের ওপর ভরসা রাখুন খুব তাড়াতাড়ি সব ঠিক হয়ে যাবে।

যেহেতু এখনো পর্যন্ত করোনা ভাইরাস থেকে মুক্তির সঠিক কোন চিকিৎসা বার হয়নি তাই আমরা শুধু ঈশ্বরের কাছে প্রার্থনা করতে পারি আর আমাদের দেশের বিজ্ঞানের ওপর ভরসা রাখতে পারি।

যেই ভাবে দ্রুত গতিতে করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ছে এই আতঙ্কে এখন গোটা বিশ্বের মানুষ অপেক্ষায় আছে কখন আমাদের বিজ্ঞান করোনা ভাইরাসের প্রতিশেধক তৈরি করবে। আর করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ করতে ওনারা কিছু পরামর্শ ও দিয়েছেন।
করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ করার জন্য ১০ টা উপায়


করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ করতে ১০ টা উপায়

প্রথমেতো আপনাকে বলবো নিজের পাড়ায় কি হচ্ছে সেই দিকে নজর রাখুন আর আমাদের দেশের আর রাজ্যের সরকারি নির্দেশ গুলো একজন দায়িত্ববান নাগরিক হিসেবে সেগুলো অক্ষরে অক্ষরে পালন করার চেষ্টা করুণ। 

হাত পরিষ্কার রাখুন -
করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ করার মূল অস্ত্র প্রতেক দিন নিয়ম করে নিজের হাত ভাল ভাবে পরিষ্কার রাখুন। অনেক মানুষের সাথে একসঙ্গে থাকলে বা নিজের নাকে মুখে বা অন্য কারোর গায়ে হাত দিলে ততক্ষণাত নিজের হাত কম করে ২০ সেকেন্ড ভালভাবে সাবান জল দিয়ে পরিষ্কার করে ফেলুন।

মাস্ক ব্যবহার করুন-
যদি আপনার পাড়ায় করোনার প্রকোপ থাকে তাহলে আপনার অবশ্যই মাস্ক ব্যবহার করার প্রয়োজন রয়েছে। এইতে কোন জীবাণু সহজে নাকে মুখে যেতে পারেনা। আপনি যদি অসুস্থ থাকেন বা অন্য মানুষের সাথে কথা বলার সময় বা কোন হাসপাতালের সংস্পর্শে যদি থাকেন তখনও আপনার মাস্ক ব্যবহার করার প্রয়োজন রয়েছে।

নাকে মুখে হাত দেবেন না -
অকারণে নিজের নাকে মুখে হাত দেবেন না অনেকের এমন অভ্যাস রয়েছে বারবার নাকে মুখে হাত দেওয়া। শুধু তাই না অন্যের হাত থেকে নিজেকে রক্ষাও করতে হবে যাতে কেউ গায়ে হাত না দেয়। এমন হলে নিজের হাত মুখ ততক্ষণাৎ সাবান দিয়ে পরিষ্কার করে ফেলুন।

দূরত্ব বজায় রাখুন-
যখন আপনি কারোর সাথে মুখোমুখি দায়রে কথা বলবেন তার থেকে খানিক দূরত্ব বজায় রাখুন। ভীড় থেকে দূরে থাকুন। তেমন প্রয়োজন হলে মোবাইলে কথা বলুন।

ভীড় থেকে দূরে থাকুন-
সরকারি নির্দেশ অনুযায়ী লগডাউন হবার পড়েও অনেক মানুষ চায়ের দোকানে, মাঠে বা বাজারে ছুটির মেজাজে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। যেখানে সরকার আমাদের পরামর্শ দিচ্ছেন একসাথে ৭ জনের বেশি ভীড় করবেন না। খুব প্রয়োজন না হলে বাড়ির বাইরে যাবেন না। কোন বন্ধু বা আত্মীয়র সাথে কথা বলার প্রয়োজন হলে আপনি মোবাইল ব্যবহার করতে পারেন।

অসুস্থ ব্যাক্তির থেকে দূরে থাকুন-করোনা আক্রান্ত এমন ব্যাক্তির থেকে দূরে থাকার চেষ্টা করুন। কোন কারণে তার সমূখে যেতে হলেও মাস্ক আর অন্যান্য safety dress ব্যবহার করুন। আপনি নিজে অসুস্থ বোধ করলে বাড়িতে থাকুন আর ডাক্তারের পরামর্শ নিন।

হাঁচি কাশির সময়- হাঁচি বা কাশির সময় রুমাল ব্যবহার করতে হবে। রুমাল না থাকলে টিসু ব্যবহার করুন আর সেই টিসু নোংরা ফেলার ডাস্টবিনে ফেলুন। টসুও না পেলে নিজের জামার কনুইতে কাশুন।

পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকুন-সবসময় বিছানার চাদর আর নিজের জামা কাপড় নিরমা, সাবান দিয়ে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখুন। কোন কাপড় একবার পড়বার পড়ে সাথে সাথে তাকে ধুয়ে ফেলুন।

শরীর খারাপ মনে হলে বাড়িতে থাকুন-যদি আপনার মনে হয় আপনার শরীর খারাপ লাগছে তবে বাড়িতেই থাকুন আর ডাক্তারের পরামর্শ নিন। যদি আপনার মনে হয় এই ভাইরাস আপনার পাড়ার কাছাকাছি রয়েছে তবে একদম বাড়ি থেকে বেড়োবেন না নিজের স্বার্থে দেশের জন্য সুরক্ষিত থাকুন সুস্থ থাকুন।

ডাক্তারের পরামর্শ নিন-COVID-19 করোনা ভাইরাসের লক্ষণ হলো জ্বর, শ্বাসকষ্ট, সর্দি-কাশী এমন কিছু মনে হলে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে। করোণার পরিস্থিতিতে ভয় না পেয়ে সজাগ থাকুন তাইতেই সুরক্ষিত থাকবেন।

নোট- করোনা সংক্রান্ত কোন বিষয় নিয়ে অযথা গুজব ছড়াবেন না। কোন ফেক নিউজ রটাবেন না। সরকারি পরামর্শ মেনে চলুন।কারোর সামান্য জ্বর সর্দি কাশী হলে ডাক্তারের পরামর্শ নিন সুস্থ থাকুন পরিবার ও দেশকে সুস্থ রাখুন। 

করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের সেবায় যেসকল পুলিশ প্রশাসন, ডাক্তার, নার্স, ক্লাব ও রাজনৈতিক দলগুলো রয়ছেন তাদের আমরা সেলুট জানাই আপনারা নিজেদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে আমাদের জন্য কতো কিছু করছেন।


If you like this article share this in your social sites
Next PostNewer Post Previous PostOlder Post Home

0 Comments:

Post a comment