ঘরে বসে রোজগারের উপায় > ঘরে বসে মোবাইলে আয় > ঘরে বসে অনলাইন আয়

হ্যালো বন্ধুরা আশা করি সকলে ভাল আছেন। এই ইন্টারনেটের দুনিয়ায় আমাদের সকলের কাছে স্মার্ট ফোন আছে কিন্তু জানেন কি এই মোবাইল দিয়ে টাকা আয় করা সম্ভব। আজ আমরা এই বিষয়েয় আলোচনা করবো। কিভাবে মোবাইল দিয়ে টাকা আয় করা যায়। হয়তো আপনি এই বিষয়ে গুগলে সার্চও করেছেন অনলাইন কিভাবে টাকা ইনকাম করা যায় আর রেজাল্ট হিসেবে অনেক কিছু পাবেন কিন্তু আপনার মনের মতো সেই সব উত্তর নাও হতে পারে তাই আপনার জন্য একটু অন্য রকম এবং সেই সব বিষয় এখানে শেয়ার করবো যার সাহায্যে অল্প সময়ের মধ্যে আপনি সহজেই ১৫-২০ হাজার টাকা অনলাইন আয় করতে পারবেন।
ঘরে বসে মোবাইল দিয়ে প্রতি মাসে হাজার হাজার টাকা আয় করার সহজ উপায়

মোবাইলে টাকা আয়ের সহজ উপায় |মোবাইলে অনলাইন আয় ২০১৯

মোবাইল দিয়ে অনলাইন টাকা আয় করার অনেক রকম কৌশল আছে কিন্তু তার জন্য আপনাকে প্রথম দিকে একটু ধৈর্য এবং পরিশ্রম করতে হবে। আর মোবাইল দিয়ে টাকা আয় করার জন্য আপনার দরকার ইমেইল আর একটা স্মার্ট ফোন এই দুটো থাকলেই হবে।

1. ব্লগ থেকে কিভাবে আয় করা যায় |ব্লগ তৈরি করে আয় | ব্লগস্পট থেকে আয়

ব্লগ গুগোলের এমন এক ফ্রি সার্ভিস যার সাহায্যে আপনি নিজের প্রতিভা সকলের সঙ্গে শেয়ার করে অনলাইন ইনকাম করতে পারবেন। এটা খুব সহজ একটা প্লাটফর্ম  যার সাহায্যে আপনি যেকোন কিছু লিখে আয় করতে পারবেন। ব্লগ একদম ওয়েবসাইটের মতোই দেখতে কিন্তু একটা ওয়েবসাইট তৈরি করতে আপনাকে অনেক কিছু শিখতে হবে এবং অনেক খরচাও আছে সেখানে ব্লগ সম্পূর্ণ ফ্রি আপনি ব্যবহার করতে পারবেন। 

আপনি গুগোলের এই সাইট ব্লগস্পট থেকে অনলাইন আয় করতে পারবেন এর জন্য রেগুলার আপনার ব্লগে নতুন নতুন পোস্ট লিখতে হবে যেমন আপনি ফেসবুকে লেখেন। ফেসবুকে কিছু লিখলে শুধু আপনার বন্ধুরা দেখতে পায় কিন্তু ব্লগে কিছু লিখলে All World আপনার লেখা দেখতে পাবেন।
ব্লগে লিখে প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ অনলাইনে মোবাইল দিয়ে টাকা আয় করছে কারণ এটা খুব সহজ আর ঠিক মত পরিশ্রম করতে পারলে প্রতিদিন এখান থেকে 50$ থেকে 100$ পর্যন্ত আয় করা যায়। ব্লগে লিখে আয় করা যেমন সহজ তেমনি এটা অনলাইনে আয় করার নিশ্চিত উপায় 2019


ব্লগে লিখে কিভাবে আয় করা যায় 

ব্লগ লিখে আয় করার অনেক উপায় আছে মনে করুন আপনি কিছু সেল করতে চান তার বিষয় ও দাম আপনার ব্লগে লিখে সহজে সেটা বিক্রি করতে পারেন বা কোন কিছু প্রমোট করতে পারেন। ব্লগে লিখে আয় করার অনেক উপায় আছে তবে আমি নিচে সহজ ৩ টে উপায় দিলাম।

Advertising - অনেক বড়ো বড়ো কম্পানি আছে যাদের এড আপনি আপনার ব্লগে দেখালে তারা আপনাকে টাকা দেবে উদাহরণ সরুপ Google Adsense, Media Net, Chitika, Infolinks, Bidvertiser etc এদের এড গুলো যেমন সোজা তেমন এই এডে ভিজিটরের কোন সমস্যাও হয়না।

Affiliate Marketing- এটা হলো অন্য কম্পানির কোন জিনিস বিক্রি করা। এমন অনেক অনলাইন প্রডাক্ট সেলর আছে আপনি যদি আপনার ব্লগে তাদের কোন প্রডাক্টের এড দেখান আর তার বিষয়ে ২-৪ কথা লেখেন কেউ যদি আপনার সেই এড দেখে প্রডাক্টটা অনলাইনে কেনে তবে তার বিনিময়ে আপনি ভাল মত কমিশন পাবেন । উদাহরণ সরুপ Amazon, Flipkart অথবা কোন হোস্টিং সেলার কম্পানি।

Sponsored Post- যখন আপনার ব্লগ অনেক প্রপুলার হয়ে যাবে এবং রোজের হাজার হাজার ভিজিটর আপনার সাইটে আসবে তখন অন্যান্য বড়ো কম্পানি নিজের থেকে আপনার কাছে আসবে তাদের কম্পানির প্রমোট করার জন্য এবং তার থেকে আপনি ইচ্ছে মতো কমিশন নিতে পারেন। 

ব্লগে লিখে গুগল এডসেন্স থেকে কিভাবে টাকা আয় করবো

আপনি যদি একজন ভাল লেখক হয়ে থাকেন তবে ব্লগে লিখে গুগল এডসেন্স থেকে টাকা আয় করতে পারেন। যদি বাংলা ছাড়া অন্য কোন ভাষা আপনার জানা নাও থাকে তবুও আপনি মনে করলে বাংলা ভাষায় ব্লগ লিখে টাকা আয় করতে পারেন। এবার আপনার মনে হতে পারে ব্লগে কি লিখবেন যদি কিছু জানা নাও থাকে আপনি মনে করলে বাংলা গল্প বা কবিতা লিখে আয় করতে পারেন। তার জন্য নিচের কিছু স্টেপ ফলো করুন।

1. প্রথমে গুগলের ফ্রি সার্ভিস blogger.com থেকে একটা ব্লগ সাইট তৈরি করে নিন।
2. আপনার ব্লগ নামের ডোমেইন পছন্দ করুন।
3. আপনার ব্লগের জন্য সুন্দর একটা থিম /টেমপ্লেট সিলেক্ট করুন।
4. ব্লগের সেটিং ঠিক করেনিন।
5. ব্লগে পোস্ট লিখে পাবলিশ করুণ।
6. পোস্ট গুগলে রেংক করার জন্য Seo করে নিন।
7. পোস্ট সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন।
8. ব্লগ থেকে আয় করার জন্য গুগল এডসেন্স এপ্রভেল নিন।
9. আপনার ব্লগে গুগল এডসেন্স কোড যুক্ত করুন।
10. এবার আপনার আয় শুরু হয়ে গেছে কেউ আপনার এডে ক্লিক করলেই আয় হবে।

আরও পড়ুন- ফ্রি ব্লগ কিভাবে তৈরি করে
আরও পড়ুন- কিভাবে ব্লগিং শুরু করবো

2. ইউটিউব চ্যানেল থেকে আয় করার উপায় |ইউটিউব থেকে আয় করবেন যেভাবে 

এখন ইন্টারনেট স্পিড অনেক বেশি হওয়ার ফলে মানুষ টিভি ছেড়ে সমস্ত কিছু ইউটিউবে দেখে। এটাও গুগলের সার্ভিস এখানেও আপনি এডসেন্স বা কোন প্রডাক্ট ভিডিও তৈরি করে অনলাইনে আয় করতে পারেন। ইউটিউব হচ্ছে সব থেকে সহজ উপায় যেখানে আপনি অনেক তাড়াতাড়ি ফেমাসও হতে পারবেন এবং অনলাইনে আয়ও করতে পারবেন। ব্লগে যেমন আপনাকে লিখতে হয় বা ছবি আপলোড করতে হয় এখানে আপনাকে ভিডিও তৈরি করে আপলোড করতে হবে।

ইউটিউব থেকে আয় করার সহজ উপায় 

ব্লগিং এর মতন ইউটিউব থেকেও একিই ভাবে ৩ টে উপায়ে আয় করতে পারবেন।

Adsense - ইউটিউব এবং ব্লগার দুটোই গুগলের ফ্রি সার্ভিস বেশির ভাগ ইউটিউবার গুগল এডসেন্স ব্যবহার করে তার কারণ গুগল এডসেন্স ইউটিউব ভিউতে পয়সা দেয়। 

Affiliated Marketing- আপনি Amazon বা Flipkart এর মতন বড়ো কোম্পানির সাথে যুক্ত হয়ে তাদের প্রডাক্টের বিষয়ে ভিডিও তৈরি করে তার সুবিধা এবং ডিসকাউন্ট কেমন জানিয়ে ইউটিউব ডিসক্রিপশনে আপনার Affiliated Link দিতে পারেন।

Sponsored Video- যখন আপনার ইউটিউব চ্যানেল অনেক সাবসক্রাইবার হয়ে যাবে এবং রোজের হাজার হাজার ভিজিটর আপনার চ্যানেলে আসবে তখন অন্যান্য বড়ো কম্পানি নিজের থেকে আপনার কাছে আসবে তাদের কম্পানির কোন ভিডিও তৈরি করে প্রমোট করার জন্য যেমনটা টিভিতে এড দেখায় এবং তার থেকে আপনি ইচ্ছে মতো কমিশন নিতে পারেন।
আরও পড়ুন- মোবাইল দিয়ে ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করুন
আরও পড়ুন- ইউটিউব ভিডিও ডাউনলোড কিভাবে করে

ইউটিউব চ্যানেল থেকে আয় করার উপায় 

ইউটিউব চ্যানেল আয় কিভাবে হতে পারে সেটা ওপরে বল্লাম। এবার কথা হলো কেমন ধরনের ভিডিও সকলে পছন্দ করে বা কেমন ভিডিও আপনি তৈরি করতে পারবেন।এই বিষয়ে আমাকে জিজ্ঞেস করলে আমি আপনাকে বলবো রেসিপি, কাটুন, টেকনিক্যাল বা WWE এই ধরনের ভিডিও বানালে ইউটিউব ভিউজ এবং সাবসক্রাইবার অনেক হয়। ভিডিও তৈরি করে ইউটিউব থেকে কিভাবে আয় করা যায় স্টেপ নিচে দেওয়া হলো।

1. প্রথমে Youtube.com থেকে একটা চ্যানেল তৈরি করে নিন।
2. আপনার চ্যানেলের নাম ছোট আর ইউনিক রাখুন।
3. ইউটিউব চ্যানেলের আর্ট বা কভার ফটো লাগান।
4. একটা ইউটিউব লগো ব্যবহার করুন।
5. ইউটিউব ভিডিও বানিয়ে আপলোড করুন।
6. আপনার ভিডিওর জন্য একটা YouTube Thumbnail ব্যবহার করুণ।
7. ভিডিও টাইটেল, ট্যাগ, ডেসক্রিপশন দিন।
8. ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন।
9. আপনার চ্যানেলে ১০০০ হাজার সাবস্ক্রাইব হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করুন।
10. এবার ইউটিউব চ্যানেল মনিটাইজ করার জন্য এপ্লাই করুণ।
আরও পড়ুনইউটিউব চ্যানেলকে ফেসবুক পেজের সাথে যুক্ত করুন
আরও পড়ুনইউটিউব ভিডিও ব্লগ পোস্টের নিচে কিভাবে দেখাবো

Android Apps দিয়ে টাকা আয় | মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম apps

আপনি হয়তো প্রায় দেখে থাকবেন সোশ্যাল মিডিয়ায় অনেকে শেয়ার করে এই এপস ডাউনলোড করলে এতো টাকা পাবেন বা এটা টাকা আয় করার Apps বা এপস দিয়ে টাকা আয় কিন্তু তার মধ্যে সব গুলো রিয়েল হয়না ফলে আমরা মনে করি এপস দিয়ে টাকা আয় করা হয়তো সম্ভব না। এখানে আমি এমন কিছু এপসের নাম শেয়ার করবো যেটা আপনি গুগল প্লেস্টোর থেকেই ডাউনলোড করতে পারবেন এবং তাদের কমেন্ট পরলে বুঝতে পারবেন এরা সত্যি  পেমেন্ট করে। 

মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম apps

Google Pay- এটা গুগলের তৈরি অনলাইন মানি টান্সফার বা UPI সার্ভিস। এই এপস দ্বারা আপনি রির্চাজ, বিল পেমেন্ট, শপিং ইত্যাদি কাজ করতে পারবেন। এখানে শুধু আপনার ব্যাঙ্ক ডিটেলস দিতে হয়। এই এপসে কোন কিছু না করে শুধু আপনার বন্ধুদের সাথে রিফার করলেই আপনি একটা রিফারে ৫১ টাকা থেকে ১০১ টাকা পেতে পারেন। এই এপসের বিষয় আর জানতে ক্লিক করুন। 

Swagbucks- মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম apps এর মধ্যে এজটি জনপ্রিয় এপস swagbucks এই এপসটা আপনি গুগল প্লেস্টোর থেকেও ডাউনলোড করতে পারবেন। এই এপসের মাধ্যমে টাকা আয় করার পদ্ধতি গেম খেলে আয় করতে পারবেন, ভিডিও দেখে আয় করতে পারবেন এবং এদের সহজ কিছু প্রশ্নের উত্তর দিয়ে আয় করতে পারবেন। 

U Speak We Pay- এর নাম শুনেই আশা করি বুঝতে পারছেন এটা কেমন টাকা আয় করার apps এই এপসের মতো সুবিধা আর কোন এপসে পাবেন না। বর্তমানে ২ লাখের বেশি মানুষ এই এপস ব্যবহার করে। এই এপস ইন্সটল করার পর আপনি যেই ভাষা সিলেক্ট করবেন সেই ভাষায় আপনার স্কিনে কিছু লেখা আসবে সেটা আপনাকে মুখে বলতে হবে। ২৫ টাকা পর্যন্ত হয়ে গেলে আপনার টাকা তুলতে পারবেন। এখানে বন্ধুদের সাথে রিফার করেও আয় করা সম্ভব।

Moocash- অনলাইন টাকা আয় করার এটা একটা দারুণ এপস। এখানে আপনি কিছু টাস্ক কম্পিলিট করে, গেম খেলে, ভিডিও দেখে বা এখান থেকে কোন এপস ডাউনলোড করেও আয় করতে পারবেন। এখান থেকে আপনি ছোট ছোট ভিডিও দেখেয় আয় করতে পারবেন। আর আপনার আয় করা টাকা ক্যাশ, বিটকয়েন বা মোবাইল রির্চাজের মাধ্যমে নিতে পারেন। 

Viggle- এটা এমনি এক এপস যেখান থেকে আপনি TV Show দেখে বা আপনার পছন্দের কোন গান শুনেও আয় করতে পারবেন শুধু তাই না এখান থেকে অন্য ব্যবহার কারীর প্রশ্নের উত্তর দিয়েও আয় করা সম্ভব। 

mCent- আজকের যুগে প্রতেক মানুষের কাছেই স্মার্ট ফোন রয়েছে এবং কম বেশি সকলেই ইন্টারনেটে ব্যবহার করে। যখন আমাদের  নেট পেক শেষ হয়ে যায় তখন আবার রির্চাজ করতে হয়। এই চিন্তা করে mcent তৈরি করা হয়েছে এটা একটা Google Chrome বা Uc Browser এর মতন ব্রাউজার এখান থেকে আপনি ফ্রি ব্রাউজ করে ফেসবুক, টুইটার বা আপনার ইচ্ছে মত ভিডিও ডাউনলোড, ছবি ডাউনলোড করতে পারবেন। এবং প্রতেক কাজের জন্য আপনি পয়েন্ট পাবেন আর সেই পয়েন্ট দিয়ে আপনি রির্চাজ করতে পারবেন। 

Google Opinion Rewards- Google এর নামতো সকলেই শুনেছেন কিন্তু Google Opinion Rewards এটার বিষয় হয়তো অনেকে জানেন না। এটাও গুগলের তৈরি মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম apps এই এপসটা ইন্সটল করে sign-up করলে আপনার কাছে রোজের নতুন নতুন সার্ভে আসে মানে ছোট ছোট প্রশ্ন করে যেমন আপনি কোন এপস ব্যবহার করেন। কোন সোশ্যাল সাইট ব্যবহার করেন এই ধরনের প্রশ্নের উত্তর দিয়ে আপনি রোজের ৩-৩০ টাকা পেতে পারেন। আর সেই টাকা দিয়ে প্লেস্টোর থেকে গেম, মুভি যেকোন প্রিমিয়াম এপস কিনতে অথবা সরাসরি আপনার ব্যাঙ্কে সেই টাকা নিতে পারবেন।

URL Shortener থেকে অনলাইন আয় কিভাবে করবো

আশা করি নাম শুনেই বুঝতে পেরেছেন এটা আসলে কি URL Shortener মানে লিংক ছোট করা। মনে করুন আপনি কোন কিছু সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করতে চায়ছেন তার লিংক কপি করে সোশ্যাল সাইডে শেয়ার করার আগে যদি লিংকটা ছোট করে শেয়ার করেন তবে দেখতেও সুন্দর লাগবে এবং প্রতেক ক্লিকে আপনি অনলাইন আয় করতে পারবেন। 

হয়তো এর আগে আপনি Google Shortner (goo.gl) এর নাম শুনেছেন এর ব্যবহার URL Short করার জন্য ব্যবহার করা হতো এটা একটা ফ্রি সার্ভিস ছিল এখন বন্ধ হয়ে গেছে। গুগলে URL Shortner লিখে সার্চ করলে হয়তো আপনি অনেক সাইট পেয়ে যাবেন কিন্তু বেশির ফেক আর অনেকে পেমেন্ট করে না।

এখানে আমি মাত্র একটাই সাইট পেয়েছি যেটা পুরনো এবং পেমেন্ট করে আপনার লিংক সট করার পরে সেই লিংকে ক্লিক করে যদি কেউ এদের সাইটে আসে তখন এদের একটা এড সো হয় সেই এড দেখার জন্য আপনি টাকা পাবেন। আবার আপনার লিংকে ক্লিক করার পর যদি এদের সাইটে কেউ একাউন্ট করে সেখান থেকেও আপনি আয় করতে পারবেন। 
stdurl.com

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং ঘরে বসে আয়

আমি এর আগেও অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং বিষয়ে বলেছি। অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং আসলে কি? মনে করুন আপনার কোন কাপড়ের দোকান আছে এবং আপনি তাড়াতাড়ি আপনার কাপড় গুলো বিক্রি করতে চান সেই হিসেবে আপনি কাউকে বল্লেন যদি সে আপনার কাপড় বিক্রি করে দেয় তবে আপনি তাকে কিছু কমিশান দেবেন এটাকেই অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং বলা হয়।

এফিলিয়েট মার্কেটিং কিভাবে শুরু করবো? 

আপনি যদি অনলাইনে এফিলিয়েট মার্কেটিং শুরু  করতে চান তবে এটা খুব ভাল বিষয়। কিন্তু কোন কিছু বিক্রি করা এত সহজ না কাস্টমার কে তার বিষয়ে সব কিছু ভাল ভাবে বোঝাতে হয় যেমন সেই জিনিসটা কিনলে তার লাভ কি?  তাইতে কতো ছাড় আছে? কোন কিছু গিফট পাবে কি না?  কোন সমস্যা হলে তার দায়িত্ব কার ইত্যাদি। 

অ্যামাজন ফিলিপ কাড অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং ঘরে বসে আয়

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং শুরু করার জন্য কোন টাকার প্রয়োজন নেই আপনি চাইলে অ্যামাজন ফিলিপ কাড এর মত বড়ো শপিং সাইটে যুক্ত হয়েও কাজ করতে পারেন তার জন্য এরা আপনাকে অ্যাফিলিয়েট লিংক দেবে সেই লিংকে ক্লিক করে যদি কোন ব্যাক্তি আপনার প্রডাক্ট কেনে তবে আপনি তার থেকে ভাল মত কমিশন পাবেন এবং আপনি মনে করলে সেই লিংক আপনার ব্লগে বা ভিডিও তৈরি করে ইউটিউবে কিংবা সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করতে পারেন।
এটাও পড়ুন- অ্যামাজন থেকে শপিং কিভাবে করবো?

শেষ কথা

বন্ধুরা আজকের পোস্টে আমরা জানলাম মোবাইল দিয়ে অনলাইন ঘরে বসে আয় কিভাবে করে আশা করি এই পোস্ট পড়ার পরে অনলাইনে টাকা আয় করা সম্ভব এই বিষয়ে আপনার কোন ডাউট নেয়। আমাদের পোস্ট কেমন লাগলো এবং অনলাইন আয় বিষয়ে আপনার কোন প্রশ্ন থাকলে কমেন্ট করে জানাবেন আজকের মতো এখানেই শেষ করলাম এমনি আরও কিছু জানতে অপরূপ বাংলার সাথে থাকুন ধন্যবাদ। 
Previous
Next Post »